কিভাবে ওয়েবসাইট বা ব্লগে সার্চ ইন্জিন যুক্ত করবেন

আজ আমি আপনাদের শেখাব কিভাবে আপনার ব্লগে একটি সার্চ ইন্জিন এলিমেন্ট যুক্ত করবেন যাতে আপনার সাইটের ভিজিটররা সেটি ব্যবহার করতে পারে
এই প্রক্রিয়াটি সম্পূর্ন করার জন্য আপনাকে কিছু কোড কপি করতে হবে এবং সাইটের এইচটিএমএল এডিটর এ গিয়ে পেস্ট করতে হবে ঠিক ওয়েবসাইটের যেখানে আপনি আপনার সার্চ ইন্জিনকে রাখতে চান

ওয়েবসাইটে বা ব্লগে কাস্টম সার্চ ইন্জিন যুক্ত করার প্রক্রিয়া : –

1. প্রথমে গুগল এর “কাস্টম সার্চ “এর হোমপেজ এ যান এরপর আপনার পছন্দমত সার্চ ইন্জিন এন্টার করুন কাস্টম সার্চ ইন্জিন না থাকলে একটি তৈরী করে নিন(এখানে এই সম্বন্ধীয় পেজ এর লিংক যুক্ত হবে)

2. এরপর “সেটআপ” অপশন এ গিয়ে “বেসিকস” ট্যাব এ ক্লিক করুন

3. “ডিটেইলস” অপশন এ যান এবং “গেট দি কোড” অপশন সিলেক্ট করুন

4. কোডটি কপি করুন এবং আপনার যে পেজটি শো করাতে চান সেই নির্দিষ্ট পেজ এর এইচটিএমএল সোর্স কোড এডিটর এ গিয়ে পেস্ট করুন যেখানে সার্চ ইন্জিন বক্সটি দেখা যাবে

5. যদি আপনি দুটি পেজ বাছেন তাহলে আপনাকে দুটি স্নিপেট কোড কপি করতে হবে

       ক) প্রথম স্নিপেট কোডটি কপি করে এইচটিএমএম কোড এডিটর এ গিয়ে পেস্ট করুন সার্চ বক্স দেখানোর জন্য

       খ) দ্বিতীয় কোডটি কপি করে এইচটিএমএল কোড এডিটর এ পেস্ট করুন যেখানে সার্চ রেজাল্ট দেখা যাবে

বুঝতে কোনো সমস্যা হলে কমেন্ট এর মাধ্যমে জানাতে পারেন

কিভাবে গুগল এ নতুন একটি পার্সোনাল ওয়েবসাইট অথবা ব্লগ তৈরী করবেন

এটা নিশ্চয়ই মেনে নিতে অসুবিধা হয়না যে এই মুহূর্তে পৃথিবীর মধ্যে সবচেয়ে জনপ্রিয় একটি সার্চ ইন্জিন হল গুগল|

গুগল ছাড়াও আরও অনেক জনপ্রিয় সার্চ ইন্জিন আছে যেগুলো আমরা সচরাচর ইন্টারনেট ব্রাউজিং এর ক্ষেত্রে ব্যবহার করি|
এক্ষেত্রে আমরা বলতে পারি  বিং , ইয়াহু , এওএল, আস্ক.কম, ইয়ানডেক্স প্রভৃতি সার্চ ইন্জিনের নাম|
তবে সবথেকে জনপ্রিয় হল গুগল সার্চ
পৃথিবীর প্রায় প্রতিটি দেশের নিজস্ব ভাষায় গুগল এর হোমপেজ এ গিয়ে সার্চ করা সম্ভব|
বলা বাহুল্য় পৃথিবীর মধ্যে সবচেয়ে বেশী মানুষ ইংরাজীতেই সার্চ করেন|
ইন্টারনেটে নিত্যনৈমিত্তিক কোটি কোটি মানুষ গুগল এর মাধ্যমে সার্চ করে থাকেন|
কিন্তু ধরুন আপনি বাংলায় খুজতে চান অথচ কিভাবে জানেন না|
এরজন্য প্রথমেই আপনার ডিভাইস এর সেটা আপনার কম্পিউটার , বা ট্যাবলেট বা মোবাইল অথবা যেকোনো প্লাটফর্ম হোক না কেন এড্রেস বার এ গিয়ে গুগল বাংলায় লিখে সার্চ করতে পারেন অথবা ইংরাজীতে|
দেখবেন গুগল এর হোমপেজ খুলেছে
এরপর নিচে ল্য়াঙ্গুয়েজ অপশন এ গিয়ে বাংলা ভাষা সিলেক্ট করুন
এখন আপনি গুগল পুরোপুরি বাংলাতে উপভোগ করুন
আজকাল আমরা সবাই চাই নিজস্ব একটা   ওয়েবসাইট তৈরী করতে কিন্তু এরজন্য তো দরকার একটি কাস্টম ডোমেইন সঙ্গে ওয়েবসাইট বিল্ডার ও একটি হোস্টিং। আমাদের সবার কাছে সেই সামর্থ নেই|
এইজন্য আপনাদেরকে আজ আমি শেখাব কিভাবে অতি অল্প সময়ের মধ্যে একটি সুন্দর ওয়েবসাইট তৈরী করবেন|

এটি একটি অতি সহজ পদ্ধতি | এরজন্য প্রথমেই দরকার গুগল এ আপনার একটি একাউন্ট| আজকাল আমরা বেশিরভাগই ইমেইল এর জন্য জিমেইল ব্যবহার করি| ব্যস এটাই যথেষ্ট নাহলে একটা জিমেইল একাউন্ট খুলে নিন ফ্রিতে

গুগল এ ব্লগ অথবা ওয়েবসাইট তৈরীর ধাপগুলি নিম্নরুপ : –

1. এবার গুগল ব্লগার(Blogger) খুলুন ও আপনার গুগল একাউন্ট দিয়ে লগ ইন করুন|
2. গুগল ব্লগার এর হোমপেজ এ গিয়ে বিভিন্ন অপশন দেখতে পাবেন এর মধ্যে ক্রিয়েট নিউ ব্লগ অপশন বাছুন

3. একটি পপ আপ স্ক্রিন আসবে ওখানে টাইটেল বা ব্লগের নাম দিন | যেমন – myblog  বা mywebsite ও দ্বিতীয় বক্স এ ব্লগের এড্রেস লিখুন যেমন – যদি টাইটেল হয়   myblog তাহলে এড্রেস হবে myblog.blogspot.com   আবার টাইটেল যদি হয় mywebsite তাহলে এড্রেস হবে mywebsite.blogspot.com যেহেতু এটি একটি সাবডোমেইন তাই আপনি পরে কাস্টম ডোমেইন যুক্ত করতে পারেন| যেমন  — mydomain.com  সাবডোমেইন ও কাস্টম ডোমেইন সম্পর্কিত বিস্তারিত আলোচনায় পরে আসব

4. এবার একটি টেমপ্লেট বাছুন| আপনি অনেক টেমপ্লেট বা ডিজাইনার দেখতে পাবেন যেমন  — সিম্পল , ডায়নামিক , ওয়াটারমার্ক,  পিকচার উইনডো , এথেরাল , অসাম ইনকর্পোরেশন , ট্রাভেল ইত্যাদি|  তবে যেহেতু আপনি নিউ ব্লগার সেক্ষেত্রে আমার মতে সিম্পল টেমপ্লেটটি বাছাই ভাল , কারন এটি ব্যবহার কারীদের পক্ষে সহজেই ব্যবহারযোগ্য়

5. এরপর ক্রিয়েট ব্লগ অপশন বাছুন ব্যস আপনার নিজস্ব একটি ব্লগ তৈরী

কিন্তু ব্লগ না হয় তৈরী করে ফেললেন এখানেই কি শেষ ! না এরপর কিছুটা কাজ বাকী আছে যেটা না করলে গুগল সার্চ করলে আপনার ব্লগ/ওয়েবসাইট টির অস্তিত্ব খুজে পাওয়া যাবে না
6. এরপর চলে যান আপনার ব্লগের মেইন সেটিংস এ ওখানে ক্লিক করলে দেখবেন “বেসিক “অপশন আছে| নীচে ‘টাইটেল’ বক্স এ গিয়ে আপনার ব্লগের নাম লিখুন

7. “ডেসক্রিপশন “বা বর্ণনা বক্সে গিয়ে আপনার ব্লগের ট্যাগসহ ছোট্ট একটি বর্ণনা দিন অর্থাত ব্লগটি কি সম্পর্কিত বা কিসের উপর ভিত্তি করে ব্লগটি নির্মিত যেমন ধরুন আপনি ছবি তুলতে ভালোবাসেন তাহলে ফটোগ্রাফি সম্পর্কে একটি বর্ননা দিন| বা আপনি গান বা মিউজিক ভালোবাসেন সেক্ষেত্রে গান সম্বন্ধে ছোট্ট একটু বর্ননা দিন তবে খেয়াল রাখবেন যদি আপনি বাংলাতে ব্লগটি বানাতে চান বাংলাতে বর্ননা করুন এবং কিওয়ার্ড বা শব্দের সংমিশ্রন গুলো এমন ভাবে দেওয়ার চেষ্টা করুন যাতে আপনার ব্লগটি ইন্টারনেট সার্চিং এ সহজেই পাওয়া যায়| টাইটেলটি অবশ্যই ইংরাজীতে লিখবেন|

8. “প্রাইভেসি” এটি হল সবচেয়ে গুরুত্বপুর্ন অধ্যায় একটু আগে যেটা বললাম অর্থাত এটি না করলে গুগল সার্চ এ আপনার ব্লগ এর অস্তিত্ব পাওয়া যাবে না
ক) প্রথম অপশন এড ইওর ব্লগ টু গুগল ব্লগ লিস্টিংস
*Yes°      *No
Yes বাছুন

খ) দ্বিতীয় অপশন লেট সার্চ ইন্জিন ফাইন্ড ইওর ব্লগ অর্থাত সার্চ ইন্জিন যাতে আপনার ব্লগ খুজে পায় তারজন্য
*Yes°      *No
আবার Yes বাছুন ও তারপর সেভ চেন্জেস করুন

9. “পাবলিশিং” টেকস্ট বক্স এ ব্লগ এড্রেস যেমন – mywebsite.blogspot.com লিখুন

এরপর বিভিন্ন অপশন আছে যেমন — পেজ সেটিংস , পোস্ট সেটিংস , লেআউট , সার্চ প্রেফারেন্স , আদার্স যেগুলো আপনি নিজেই সেটিং করতে পারবেন | আর যদি কোনো সমস্যা থাকে কমেন্ট এর মাধ্যমে জানাতে পারেন |

এনড্রয়েড ফোন লক হয়ে গেছে! কিভাবে আনলক করবেন যেনে নিন

আজকাল আমরা প্রায় সবাই এনড্রয়েড
ফোন ব্যবহার করি. কিন্তু অধিকাংশই
বেসিক জিনিসগুলো জানি না.

এনড্রয়েড প্রযুক্তি হল একটি ওপারেটিং
সিস্টেম. যেমন আমরা পি.সি তে ব্যবহার
করি উইনডোজ, লিনাক্স,ম্য়াক, প্রভৃতি.

এনড্রয়েড প্রযুক্তিরও এরকম কিছু ভার্সন রয়েছে- যেমন আইসক্রিম স্য়ানডউইচ, জিন্জারব্রেড, কিটক্য়াট, ললিপপ ইত্যাদি
সম্প্রতি নতুন ইউজার ইন্টারফেস যুক্ত
এনড্রয়েড এম বেরিয়েছে.

যাই হোক কাজের কথায় আসা যাক
এনড্রয়েড বা যেকোনো ফোনের আইএম ইআই [International Module Equipment Identity] চেক করুন
*#06# ডায়াল করে অথবা
*#0000# দিয়ে

ফোন আনলক:–

যদি আপনার ফোনের পাসওয়ার্ড ভুলে যান প্রথমে:- আপনার ফোনটি রিকভারি মোডে অন করুন এইভাবে:

1. ফোনের পাওয়ার বাটন ও ভলিউম আপ বাটন একসাথে চেপে ধরুন 5-10
সেকেন্ড মত প্রথমে সবুজ স্ক্রিন আসবে
কিছুক্ষন পর লাল আসবে.

2. লাল স্ক্রিন না আশা পর্যন্ত চেপে ধরুন

3. এবার ছেড়ে দিন ফোনটি অটোমেটিক
রিস্টার্ট নেবে.

4. এবার আপনার সেটিংস অপশন এ যান ওখানে ব্যাক আপ ও রেস্টোর বাটনে ক্লিক করুন. ওখানে ব্যাক আপ
মাই ডাটা ও অটোমেটিক রেস্টোর অপশন দুটি টিক মার্ক করে রাখুন.
এতে আপনার সমস্ত পাসওয়ার্ড ও আগের ইনস্টল করা এপের ব্যাক আপ থাকবে.[ যদি না চান তবে আনটিক মার্ক
করে দিন]

5. এরপর ওই স্ক্রিনেই ফেক্টরি ডাটা রিসেট  অথবা কোনো ফোনে রিসেট অপশন পাবেন ওখানে ক্লিক করুন.
আপনার ফোন আবার আগের অবস্থায়
ফিরে আসবে কোনোরকম প্রবলেম ছাড়াই.
এবার আপনার ইচ্ছামতো পাসওয়ার্ড লক, পিন লক, পেটার্ন লক করুন.

এই পদ্ধতিতে কোনো সমস্যা থাকলে
কমেন্ট করে জানান.